ঘটনাবলীঃ নফসের বিরুদ্ধাচারণ

জনৈক আল্লাহর অলী বর্ণনা করেছেন , আমি এক কর্মকারকে দেখলাম সে আগুনে উত্তপ্ত লোহা হাত দ্বারা ধারণ করছে, কিন্তু উত্তপ্ত লোহা তার ক্ষতি সাধন করছেনা । আমি তাকে এর কারন জিজ্ঞেসা করলাম । সে বলল, আমার এক পড়শীর অপরূপ সুন্দরী রমণী ছিল । আমার অন্তরে তার মহব্বত সৃষ্টি হয়ে গেলে । কিন্তু স্ত্রী লোকটি অতিরিক্ত পরহেজগার হওয়ার কারণে আমার পক্ষে কুকর্ম করা সম্ভবপর হলোনা । কোন এক সময় ভীষণ দুর্ভিক্ষ দেখা দেয় । মহিলাটি অভাবের কবলে পড়ে আমার নিকট খাবারের দরখাস্ত করে ও বলে, আমাকে আল্লাহর ওয়াস্তে খাবার দিন । আমি বললাম, আমাকে তোমার সাথে মেলামেশায় সুযোগ দিতে হবে । মহিলা বলল, আমার পক্ষে গুনাহে লিপ্ত হওয়া সম্ভব নয় । এভাবে পর পর তিনদিন অতিবাহিত হল, চতুর্থ দিন মহিলাটি বলল, আমাকে আল্লাহর ওয়াস্তে খাবার দিন । আমি বললাম , না । অতঃপর আমি ঘরে গিয়ে তার জন‌্য খাদ‌্য পেশ করলাম । এ সময় আল্লাহ পাক দয়া করে আমার মনের ত্রুটি দূর করে দিলেন এবং মনে মনে ভাবলাম, এ মহিলা গুনাহ থেকে বিরত থাকে আর আমি তা থেকে বিরত থাকিনা । হে আল্লাহ ! আমি তোমার নিকট ক্ষমা চাচ্ছি । এ বলে আমি মহিলাকে বললাম, আল্লাহর ওয়াস্তে তোমাকে খাদ‌্য দিলাম, অন‌্য কোন উদ্দেশ‌্য নয় । তুমি বিনা দ্বিধায় উহা ভক্ষণ কর । তখন মহিলা বলল, হে আল্লাহ ! লোকটি যদি সত‌্যবাদী হয় তার উপর দুনিয়া ও আখেরাতের আগুনকে হারাম করে দিন । আল্লাহ পাক তার দোয়া কবুল করেছেন । তাই আগুন আমাকে ক্ষতি করেনা । (নুজহাতুল মাজিলিস ১/১০০ পৃষ্ঠা)

হযরত ওমর (রাঃ) এর খিলাফত কালে এক  ‍যুবক এশার নামায পড়ার উদ্দেশ‌্যে রওয়ানা হল । জনৈকা মহিলা দেখে তাকে আন্দর মহলে নিয়ে গেল । এমন সময় ঐ যুবক মহান আল্লাহর বাণী –

 

 

অনুবাদঃ – যাদের মনে ভয় রয়েছে, তাদের  ‍উপর শয়তানের আগমন ঘটার সাথে সাথে তারা সর্তক হয়ে যায় এবং তখনই তাদের বিবেচনা শক্তি জাগ্রত হয়ে উঠে । (সূরা আরাফা – ২০১ )

এই আয়াতের কতা স্মরণ করে বেহুঁশ হয়ে পড়ে গেল । তখন মহিলা তাকে ঘরের দরজায় ফেলে রাখল । যুবকের পিতা এসে দেখল এবং হুঁশ হওয়ার পর তাকে জিজ্ঞেসা করল । যুবক উক্ত আয়াত পাঠ করে পুনঃ বেহুঁশ হয়ে পড়লে এবং তার প্রাণবায়ু বের হয়ে গেল । ছেলেটিকে দাফন করার পর হযরত ওমর (রাঃ) ঘটনা অবগত হয়ে তথায় উপস্থিত হলেন এবং তার কবরে উপর দাঁড়িয়ে বললেন –

অনুবাদঃ – হে অমুক ! যে ব‌্যক্তি তার পালনকর্তার সামনে পেশ হওয়ার ভয় রাখে তার জন‌্য রয়েছে দুটি জান্নাত ।