অনুবাদঃ হযরত আনাস (রাঃ) হতে বর্ণিত জনৈক ব‌্যক্তি আরজ করল, “ইয়া রাসূলাল্লাহ ! কিয়ামত কবে হবে ? হযরত রাসূল পাক ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তুমি কিয়ামতের জন‌্য কি পাথেয় সংগ্রহ করেছ ? লোকটি বলল, আমি কিছুই পাথের সংগ্রহ করতে পারিনি । তবে আমি আল্লাহ ও তাঁর রাসূলকে ভালবাসি । এতদশ্রবণে তিনি বললেন, তুমি যাকে ভালবাস কিয়ামতে তুমি তার সাথী হবে ।

ইসলামের ঐ যুগে অত্র হাদীছ শুনে সাহাবায়ে কেরাম এতই আনন্দিত হয়েছেন যে, আমি কোনদিন তাদেরকে অন‌্য কিছুর কারণে ততটা আনন্দিত হতে দেখিনি । (মেশকাত শরীফ – ৪২৬ )

ঘটনাবলীঃ

কা’ব আহবার ছাহাবী (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, মহান আল্লাহ বান্দার থেকে হিসাব নিকাশ লওয়া আরম্ভ করবেন । যে বান্দার গোনাহ বেশী নেকী কম, তখন তাকে দোযখে নেযার হুকুম দেয়া হবে । তাকে যখন দোযখের ধারে নেওয়া হবে তখন মহান আল্লাহ বলবেন, হে জিবরীল ! লোকটিকে ধর এবং জিজ্ঞাস কর, সে কোনদিন দুনিয়ার বুকে আলেমের মজলিসে বসেছে কিনা ? যদি বসে থাকে তাহলে ঐ আলেমের সুফারিশে মুক্ত করে দাও । জিবরীলের প্রশ্নে উত্তরে সে বলবে , না । এমন সময় জিবরীল বলবেন ইয়া আল্লাহ ! আপনি তো বান্দার হালহাকীকত সম্পর্কে পূর্ণ অবগত জিবরীল লোকটিকে জিজ্ঞেস করবেন , তুমিকি কোনদিন কোন আলেমকে ভাল বেসেছ ?

সে বলবে, না । পুনঃ আল্লাহপাক জিবরীলকে বলবেন, “লোকটিকে জিজ্ঞেস কর সে কি কোনদিন আলেমের সাথে খানা খেয়েছে ? উত্তরে বলবে না । আল্লাহ পাক জিবরীলকে বলবেন , জিজ্ঞেস কর লোকটি আলেমের গলিতে বাস করেছে কি ? সে বলবে না, । তখন আল্লাহ বলবেন , হে জিবরীল ! জিজ্ঞেস কর সে কি এমন কোন ব‌্যক্তিকে ভাল বেসেছে যিনি আলেমকে ভালবাসতেন ? তখন উত্তরে বলবে, হ‌্যাঁ । তখন মহান আল্লাহ বলবেন, হে জিবরীল ! তুমি তার হাত ধরে বেহেশতে পৌছে দাও ।

 

চুরি করা

অনুবাদঃ মহান আল্লাহর বাণী, “চোর নর ও নারী উভয়ের হাত কেটে দাও । একা তাদের কৃতকর্মের ফল ও খোদা প্রদত্ত শাস্তি । (সূরায়ে মায়েদা – ৩৮ )

বর্ণিত আছে, বনী ইসরাইলের জনৈকা মহিলার একটি মুরগী ছিল । চোর উহা চুরি করে নেয়ায় মহিলাটি কোন প্রকার প্রতিবাদ ও গালীগালাজ না করে আল্লাহর উপর সোপর্দ করলেন । এদিকে চোর মোরগ জবেহ করে যখন চামড়া হতে পশম উঠাতে শুরু করল তখন চোরের সমস্ত মুখমণ্ডলে ঐ মোরগের পশম উঠে পুরিপূর্ণ হয়ে গেল । চোর উক্ত পশম মুখমণ্ডল হতে দূর করার চেষ্টা করে ব‌্যর্থ হলো । পরিশেষে বনী ইসরাইলের এক আলেমের নিকট এসে ঘটনা প্রকাশ করল । তিনি বললেন ঐ মহিলার অভিশাপ লেগেছে । তখন চোর মহিলার নিকট লোক পাঠিয়ে বলল, তোমার মুরগী কোথায় ? ওমনি মহিলা বলল , চোর চুরি করে নিয়ে গেছে । লোকটি বলল, যে চুরি করেছে সে নিশ্চয়ই তোমাকে কষ্ট দিয়েছে । মহিলা বলল, নিশ্চই আমি মনে ব‌্যথা পেয়েছি । চোরকে ভালমন্দ কিছু বলছি না । এভাবে উভয়ের কথোপকথন চলছে । হঠাৎ করে মহিলার চেহারায় গোস্বার ভাব পরিলক্ষিত হলো । চোরকে বদ দোয়া করল । ওমনি চোরের চেহারা হতে পশম ঝরে মাটিতে পতিত হল । সুবহানাল্লাহ । (বদদোয়া ও গোস্বার ফল)

পাদরী সাহেবকে ঘটনা অবহিত করানো হল । তিনি বললেন, “যখন মহিলাটি মুসীবতে ছবর ও ধৈর্য‌্যধারণ করলো তখন মহান আল্লাহ প্রতিশোধ নিয়েছেন । যখন মহিলা নিজে প্রতিকার করতে লাগল তখন আল্লাহর প্রতিকার রহিত হয়ে যায়, তাই পশম চেহারা হতে ঝরে পড়ে যায় । (মুসতাদরাক – ১৪১ পৃঃ)