ব্রিটিশ ভারতের শাসনতান্ত্রিক ও রাজনৈতিক অধিকার আদায়ের লক্ষ‌্যে ১৯০৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা একটি উল্লেখযোগ‌্য ঘটনা । এটিই ছিল ভারতর্ষের মুসলমানদের প্রথম রাজনৈতিক সংগঠন । উনিশ শতকের শুরু থেকেই বিভিন্ন কারণে বিশেষত কংগ্রেসের হিন্দুঘেঁষা নীতির জন‌্য মুসলমানগন নিজেদের জন‌্য একটি স্বতন্ত্র আবাসভূমি গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে । এরই ধারাবাহিকতায় মুসলিম নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে ব্রিটিশ সরকারের সাথে আলাপ –আলোচনা করার চিন্তা- ভাবনা করে । যার ফলে মুসলিম লীগ গঠিত হয় ।

১৯৪৬ সালের নির্বাচনে সংখ‌্যাগরিষ্ঠ আসন লাভ করে মুসলিম লীগ ১৯৪৭ সালে স্বাধীন পাকিস্তানের শাসনভার গ্রহণের পর থেকেই পূর্ববাংলার প্রতি স্বৈরাচারী নীতি গ্রহণ করে । ফলে আর্থ-সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক দিক দিয়ে পূর্ববাংলা চরম বৈষম‌্যের শিকার হয় । মূলত সুশাসনের নামে পূর্ববাংলায় মুসলিম লীগের অপশাসন চলে । মুসলিম লীগ সরকারের দেশ শাসনে ব‌্যর্থতার কারণে পূর্ববাংলায় গণতন্ত্রের দাবিতে আন্দোলন শুরু হয় এবং ধীরে ধীরে এ আন্দোলন ব‌্যাপক আকার ধারণ করে । ফলে পূর্ববাংলা স্বাধীনতার পথে অগ্রসর হয় ।

আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা

পূর্ব বাংলার রাজনৈতিক ইতিহাসে মুসলিম লীগ বিরোধী দল হিসেবে আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠা একটি উল্লেখযোগ‌্য ঘটনা । বাঙালিদের প্রতি মুসলিম লীগের বৈষম‌্যমূলক নীতির কারণে পূর্ববাংলার নেতৃবৃন্দ নিজেদের অদিকার আদায়ের জন‌্য ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন নতুন রাজনৈতিক দল আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠন করেন । আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠা উপলক্ষে আয়োজিত কর্মী সম্মেলনে শামসুল হক দলের দাবিসমূহ একটি পুস্তিকায় ছাপিয়ে তা সভায় উপস্থাপনন করেন । পরবর্তীতে এ দাবিগুলো সংশোধন করে দলের লক্ষ‌্য ও উদ্দেশ‌্য নির্ধারিত হয় ।

১৯৫৪ সালের নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের জয় : মুসলিম লীগ নেতাদের একগুঁয়েমি, অদূরদর্শিতা ও অযোগ‌্যতার কারণে প্রায় এক দশকের মধ‌্যে মুসলিম লীগের অস্তিত্ব বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে । এ সুযোগে আওয়ামী মুসলিম লীগ পূর্ববাংলায় গণসংযোগ চালিয়ে নিজেদের অস্তিত্বকে মজবুত করে নেয় । তাই ১৯৫৪ সালের ৮ মার্চের নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট নিরঙ্কুশ সংখ‌্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে । আর এ নির্বাচনে পরজয়ের মধ‌্য দিয়ে পূর্ববাংলায় মুসলিম লীগের ভরাডুবি হয় । আওয়ামী মুসলিম লীগ শুধু পাকিস্তানের প্রথম বিরোধী দল ছিল না , বাঙালির স্বার্থের সত‌্যিকার ও আপসহীন প্রতিনিধি হিসেবেও এ দলের যাত্রা শুরু । দলটি ১৯৫৫ সালে আওয়ামী লীগ নাম ধারন করে অসাম্প্রদায়িক চেতনার বিকাশ ঘটায় ।  গণভিত্তিক কর্মসূচি প্রদানের অল্প সময়ের মধ‌্যেই আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক, জাতীয়তাবাদী, গণতান্ত্রিক ও প্রগতিশীল রাজনীতির মূল স্রোতধারায় মিশে যায় । আর আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা অর্জিত হয় ।