সীরাতে রাসূল (সা): মক্কা অধ‌্যায়

রাসূল (সা) এর জন্মের ৫০ দিন পূর্বে (৫৭০) খ্রি. কাবাঘর ধ্বংসে করতে এসে আবরাহা ও তার বিশাল হস্তী বাহিনী ধ্বংস হয় । ওয়াদী আল মুহাসসর স্থানে পৌঁছার সাথে সাথে হাতিগুলো বসে যায়, কাবামুখী না হয়ে উল্টো দিকে ছুটতে থাকে । ঠিক সে সময় ক্ষুদ্রাকৃতির এক ঝাঁক আবাবিল নামক পাখি ছোট ছোট পাথার কণা নিক্ষেপ করে সম্পূর্ণ সৈন‌্যবাহিনীকে নাস্তানাবুদ করে ভূষির ন‌্যায় করে ফেলে । ঐতিহাসিকগণ এ ঘটনাকে রাসূল (সা) এর জন্মের পূর্বাভাস হিসেবে মনে করেন । নইলে কাবার অধিকারী পৌঁত্তলিকদের নিকট আবরাহার খ্রিষ্টান বাহিনীর পরাজয় ঘটত না । আল্লাহ বলেন – ‘আপনি কি দেখেননি , আপনার প্রভু হস্তী বাহিনীর সাথে কেমন আচরণ করেছিলেন ? (– সূরা ফীল)

 

জীবনপঞ্জি: নবুওয়াত পূর্ব সময় (৪০ বছর )

৫৭০ খ্রি. ৫ মে , ১২ রবিউল আউয়াল (ভ্ইনমত ৫৭১ খ্রি. ২০ এপ্রিল, ৯ রবিউল আউয়াল) সোমবার সুবহে সাদেকের সময় মক্কার বিখ‌্যাত কুরাইশ বংশের হাশেমী গোত্রে জন্ম । ১৫ দিন পর দুধ পান, বিশুদ্ধ আবহাওয়ায় লালন ও পরিশুদ্ধ ভাষা রপ্তের জন‌্য বনু সাদ গোত্রের হালিমা সাদিয়াকে প্রদান ।

৫৭২ খ্রি. (২য় বছর): দুধপান শেষে মা আমিনার কাছে প্রত‌্যাবর্তন । বরকত লাভের আশায় হালিমার পুনরায় নেওয়ার আবেদন এবং মক্কায় সংক্রামক রোগের প্রাদুর্ভাবের কারণে মায়ের সম্মতি ।

৫৭৪ খ্রি. (৪ বছর) : ১ম বক্ষ বিদীর্ণ । হালিমা এতে ভীত হয়ে তাঁকে মায়ের কাছে দিয়ে আসেন ।

৫৭৬ খ্রি. (৬ বছর ) : মায়ের সাথে মদীনায় পিতার কবর জিয়ারত শেষে ফেরার পথে আবওয়া নামক স্থানে মায়ের মৃত‌্যু । দাসী উম্মে আইমান মক্কায় নিয়ে এলে দাদা আবদুল মুত্তালিবের স্নেহে লালন-পালন ।

৫৭৮ খ্রি. ( ৮ বছর ) : দাদার মৃত‌্যু । চাচা আবু তালিবের লালন পালনের দায়িত্ব গ্রহণ , আমৃত‌্যু (রাসূলের ৫০ বছর বয়স পর্যন্ত) ছায়ার মত আশ্রয় দান ।

৫৮০ খ্রি. (১০ বছর) : ২য় বার বক্ষ বিদীর্ণ ।

৫৮২ খ্রি. (১২ বছর):  ৪ বছর ধরে চাচার মেষ পালন । তারপর চাচার সাথে সিরিয়ায় বাণিজ‌্য সফরে রওয়ানা । পথিমদ‌্যে বুসরা নামক স্থানে পাদ্রী বাহীরা কর্তৃক নবুওয়াতের ভবিষ‌্যদ্বাণী  এবং বাহীরার সতর্ক পরামর্শে ফিরে আসা । পরবর্তীতে ২০/২১ বছর বয়স পর্যন্ত চাচাদের সাথে ইয়ামান, সিরিয়া, বাহরাইন, জাআশা, জারাল, প্রভৃতি বিখ‌্যাত বাণিজ‌্য কেন্দ্রগুলোতে একাধিকবার সফর ।

৫৮৪ খ্রি. (১৪ বছর) : তীর কুড়িয়ে ও আগুন নির্বাপণের মাধ‌্যমে ৪র্থ ফুজ্জার যুদ্ধে অংশগ্রহণ এবং মানবাধিকার ও সমাজসেবামূলক সংস্থা ‘হিলফুল ফুযুল’ গঠনের সক্রিয় অংশগ্রহণ । এর কার্যক্রম নবুয়াত প্রাপ্তির পূর্ব পর্যন্ত সক্রিয় ছিল ।

৫৯৪ খ্রি. (২৪ বছর) : মক্কার অভিজাত ধনাঢ‌্য মহিলা খাদিজা বিনতে খুয়াইলিদের (রা) মালামাল নিয়ে সিরিয়া – ইয়ামানে দু’বার বাণিজ‌্য সফর ও অভাবিত লাভ অর্জন এবং খাদিজার ভৃত‌্য সফরসঙ্গী মাইসার কর্তৃক বাণিজ‌্যিক কুশলতা ও সততার ভূয়সী প্রশংসা ।

৫৯৫ খ্রি. (২৫ বছর ) : বিশ্বস্ততা, দক্ষতা  ও অনুপম চারিত্রক বৈশিষ্ট‌্যের খ‌্যাতিতে মুগ্ধ হয়ে কিংবদন্তিপ্রতীম সতী সাধ্বী নারী ৪০ বছর বয়স্ক খাদিজার ৩য় এবং নবীজির ১ম বিয়ে ।

৬০৫ খ্রি. (৩৫ বছর ) : কাবা শরীফ সংস্কার কাজে প্রত‌্যক্ষ অংশগ্রহণ এবং হাজরে আসওয়াদ স্থাপন বিবাদের অভূতপূর্ব মীমাংসার ফলে অবশ‌্যম্ভাবী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ থেকে রক্ষা এবং মক্কার অবিসংবাদিত মধ‌্যস্থতাকারীতে পরিণত । এ সময় বিশ্বস্ততা, আমানতদারিতা ও সত‌্যবাদিতার কারণে কৈশোর প্রদত্ত আল-আমীন, আস-সাদিক উপাধির বিপুল জনপ্রিয়তা লাভ । ৫ বছরের চাচাত ভাই আলীকে প্রতিপালনের সিদ্ধান্ত ।

৬০৭ খ্রি. (৩৭ বছর ) : ৩ বছরব‌্যাপী হেরা গুহায় ধ‌্যানমগ্নতা শুরু  ।

৬১০ খ্রি. ( ৪০ বছর) : নবুওয়াত প্রাপ্তির অল্প কিছুদিন পূর্বে ৩য় বার বক্ষ বিদীর্ণ ।

 

 

সীরাতে রাসূল (সাঃ) মদীনা অধ‌্যায়

 

৬২২ খ্রি.  ২০ সেপ্টেম্বর , ১ম হিজরী ৮ রবিউল আউয়াল – মহানবী (সা) কুবায় পৌছেন । প্রথম মসজিদ নির্মাণ । ৫ অক্টোবর ২৩ রবিউল আউয়াল –বানু সালিম গোত্রে সর্বপ্রথম জুমআর নামাজ আদায় করেন । তারপর মদিনায় আগমন: বিপুল সম্বর্ধনা ।

৬২৩ খ্রি. এপ্রিল , ১ম হিজরী শাওয়াল –মসজিদে নববী নির্মাণ সম্পন্ন । সাত মাস আবু আইয়ুব আনসারী (রা) এর বাসভবনে অবস্থান শুরু ।

৬২৩ খ্রি. আগস্ট, ২য় হিজরী সফর মাদিনায় ২০০ মাইল দূরে আবওয়া নামাক স্থানে বানু দুমরার সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন ।

৬২৩ খ্রি. ডিসেম্বর , ২য় হিজরী সফর জামাদিউস সানি –মদিনার ৯০ মাইল দূরে বানু মুদলিজের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন ।

৬২৪ খ্রি. জানুয়ারী , ২য় হিজরী রজব-বিখ‌্যাত মদিনার সনদ রচনা এবং সকল গোত্র ও সম্প্রদায়ের সম্মতি ও স্বাক্ষর ।

৬২৪ খ্রি. ফেব্রুয়ারী, ২য় হিজরী শাবান-মসজিদুল আকসার পরিবর্তে ক্বাবার দিকে কিবলার পরিবর্তন । নামাজের আজানের প্রবর্তন ।

৬২৪ খ্রি. ১৩ ই মার্চ, ২য় হিজরী ১৭ রমজান –ঐতিহাসকি বদর যুদ্ধে কুরাইশদের চরমভাবে পরাজয়বরণ ।

৬২৪ খ্রি. ২৬ এপ্রিল , ২য় হিজরী জিলক্বদ-ইহুদি গোত্র বানু কাইনুকাকে বিশ্বাসঘাতকতার কারণে ১৫ দিন অবরোধ , শেষে বহিস্কার ।

৬২৫ খ্রি. ২৩ মার্চ, ৩য় হিজরী ৭ শাওয়াল –উহুদ যুদ্ধ ।

৬২৫ খ্রি. ২৩ মার্চ , ৩য় হিজরী ৮শাওয়াল – যুদ্ধ ফিরতা কুরাইশ বাহিনীর পুনঃআক্রমণ রোধ করতে মুসলিম বাহিনির হামরাউল আছাদ পর্যন্ত অগ্রসর, এতে ভীত হয়ে রওয়া থেকে কাফেরদের পলায়ন ।

৬২৫ খ্রি. আগস্ট , ৪ঠা হিজরী রবিউল আউয়াল –রাসূল (সা) হত‌্যার ষড়যন্ত্র ও সন্ধি চুক্তি ভঙ্গ করার কারণে মদিনা থেকে খাইবারে বহিস্কার ।

৬২৬ খ্রি. জানুয়ারি , ৪ হিজরী শাবান –আবু সুফিয়ানের পূর্বের চ‌্যালেঞ্জ অনুযায়ী বদর প্রান্তে মহানবী (সা) মোকাবেলার জন‌্য পৌঁচালেও , মক্কা থেকে কিছুদূর অগ্রসর হয়ে আবু সুফিয়ানের ভীত-সন্ত্রস্ত অবস্থায় পালায়ন ।

৬২৬ খ্রি. জুলাই , ৫ হিজরী রবিউল আউয়াল – সিরিয়ার নিকটবর্তী দুমাতুল জন্দালে ১০০০ সাহাবি নিয়ে গমন, খবর পেয়ে শত্রুদের পলায়ন ।

৬২৭ খ্রি. মার্চ ৫ হিজরী ২য় শাবান – মদিনার ২০০ মাইল দূরে রাসূল (সা) মুসতালিক গোত্রের বিরুদ্ধে অভিযান , ইফকের ঘটনা । পর্দার বিধান অবতীর্ণ ।

৬২৭ খ্রি. মার্চ ৫ হিজরী শাওয়াল –খন্দক বা পরিখার যুদ্ধ । ইহুদি, কুরাইশ ও বেদুইন ত্রিশক্তির সম্মিলত বাহিনীর মাসব‌্যাপী মদিনা অবরোধ । কিন্তু আভ‌্যন্তরীণ অনৈক‌্য ও প্রচণ্ড ঝড়ের কবলে পড়ে তাদের পলায়ন ।

৬২৭ খ্রি. এপ্রিল, ৫ হিজরী জিলকদ্ব-খন্দক যুদ্ধে বিশ্বাসঘাতকতা করার কারণে ইহুদি গোত্র বানু কায়নুকার ২৫ দিন অবরোধের পর আত্মসমর্পণ, পুরুষ যোদ্ধাদের মৃত‌্যুদণ্ড প্রদান ।

৬২৭ খ্রি. ৬ হিজরী – খৃষ্টানদের সাথে সন্ধি ।

৬২৮ খ্রি.  মার্চ, ৬ হিজরী শাওয়াল – ঐতিহাসিক হুদায়বিয়ার সন্ধি ।

যাকে কুরআন স্পষ্ট বিজয় বলা হয়।  ইসলাম গ্রহণের দাওয়াত দিয়ে বিভিন্ন রাজ‌্যে দূত প্রেরণ ।

৬২৮ খ্রি. মে , ৭ হিজরী মহররম – খাইবার অভিযান ও বিজয় ।

৬২৯ খ্রি. মার্চ, ৭ হিজরী মাওয়াল ২০০ সাহাবী নিয়ে উমরা হজ্ব পালন ।

৬২৯ খ্রি. সেপ্টেম্বর , ৮ হিজরী জমাদিউল আউয়াল – মুতার যুদ্ধে লক্ষাধিক বাহিনীর বিরুদ্ধে ৩ হাজার মুসলমানদের ৩দিন যুদ্ধের পর বিজয় । যুদ্ধে বীরত্বের কারণে খালিদ বিন ওয়ালিদকে সাইফুল্লাহ উপাধি প্রদান ।

৬৩০ খ্রি. ১৫ জানুয়ারি , ৮ হিজরী ২১ রমজান – দশ হাজার সাহাবী নিয়ে ১০ রমজানে মক্কাভিযানে যাত্রা এবং  রক্তপাতহীনভাবে ২১ রমজানে মক্কা বিজয় । এটি ইতিহাসের একটি বিরল ঘটনা ।

৬৩০ খ্রি. ২৭ জানুয়ারি , ৮ হিজরী ৬ শাওয়াল –হুনাইনের যুদ্ধের বিজয় ।

৬৩০ খ্রি. মার্চ, ৮ যিল –ক্বদ-তায়েফ বিজয় । শত্রুদের ইসলাম গ্রহণ ।

৬৩০ খ্রি. নভেম্বর, ৯ হিজরী রজব – ৪০ হাজার সাহাবী নিয়ে তাবুক অভিযান । রোমান সম্রাট লক্ষাধিক সৈন‌্য নিয়ে অগ্রসর হয়েও ফিরে যায় ।

৬৩০ – ৬৩১ খ্রি. ৯ হিজরী – প্রতিনিধ প্রেরণের বছর । ওমান, হাজরামাউত, নাজরান, মাহবার, বাহরাইন প্রভৃতি অঞ্চলের প্রতিনিধি মদীনায় আসেন এবং ইসলমা গ্রহণ করেন ।

৬৩২ খ্রি. ৩ ফেব্রুয়ারি , ১০ হিজরী ২৫ যিলক্বদ – ১,১৪,০০০ সাহাবীসহ মক্কায় হজ্জে গমন এবং ৯ যিলহজ্জ /৮মার্চ আরাফাতে বিদায় হজের ভাষণ ।

৬৩২ খ্রি. ২৮ মে, ১১ হিজরী ১২ রবিউল আউয়াল, সোমবার দ্বিপ্রহরের পূর্বক্ষণে মহানবী (সা) এর ইন্তেকাল এবং আয়েশা (রা) ঘরে যেখানেতিনি ইন্তেকাল করেন সেখানেই সমাহিত করা হয় ।